ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম | nid নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করা

ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম এখন অনেক সহজ একটি বিষয়। মাত্র চারটি (০৪) ধাপ অনুসরণ করে নিজেই নিজের আইডি কার্ড বের করা যাবে কোন প্রকার ঝামেলা ছাড়াই। কি অবাক হচ্ছেন?

অবাক হওয়ার কোন কারন নেই। ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম সম্পর্কেই আজকের আলোচনা। আইডি কার্ড অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি ডকুমেন্ট। হাতের কাছে সব সময় এটি নাও থাকতে পারে, তাই আমাদের সকলের জানা উচিত কিভাবে অনলাইনে খুব সহজে আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে হয়।

ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম
ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম

আইডি কার্ড বের করার নিয়ম

আইডি কার্ড বিভিন্ন ভাবে বের করা যায়। দরকার শুধু একটি স্মার্ট ফোন অথবা কম্পিউটার। তবে একটি বিষয় মনে রাখা জরুরী যে আগে আইডি কার্ড বের করতে ফেস ভেরিফিকেশন এর প্রয়োজন পড়ত না, কিন্তু এখন যার আইডি কার্ড বের করা হবে তার মুখের ছবি লাগবে।

অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করার জন্য প্রথমে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার এর সরকারি ওয়েবসাইট (services.nidw.gov.bd) এ প্রবেশ করতে হবে। তারপর ফর্ম / ভোটার নাম্বার এবং জন্ম তারিখ দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। নতুন রেজিস্ট্রেশন কিংবা আগে রেজিস্ট্রেশন থাকলে লগইন করে প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে আইডি কার্ড বের করা যাবে সহজ নিয়ম এ।

আইডি কার্ড বের করার সচরাচর চারটি (০৪) পদ্ধতি রয়েছে। যেভাবে আইডি কার্ড ডাউনলোড করা যায় তা হলঃ

  • মোবাইল নাম্বার দিয়ে
  • টোকেন নাম্বার দিয়ে
  • ফরম নম্বর বা স্লিপ নম্বর দিয়ে এবং
  • ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম

এই চারটির যেকোনো একটি ব্যাবহার করে আইডি কার্ড বের করা যাবে। তাই সবগুলো নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। আপনার যেটি সুবিধা মনে হয় সেটি দিয়ে আপনি আপনার আইডি কার্ড বের করতে পারবেন।

NID নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম

services.nidw.gov bd সাইটে প্রবেশ করে NID card নাম্বার দিয়ে এবং জন্ম তারিখ দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করে। আবেদন সম্পন্ন হলে ইউজার নেম দিয়ে লগ ইন করে একটি সচল মোবাইল নাম্বার ইউজ করে NID Wallet আপ এর মাধ্যমে ফেস ভেরিফিকেশন করতে হবে। তারপর এখান থেকে আইডি কার্ড বের করা যাবে। সম্পূর্ণ প্রক্রিয়াটি নিয়ে ধাপে ধাপে দেখানো হয়েছে।

ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম

ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করতে হলে প্রথমে ইউনিয়ন পরিষদ কিংবা কেন্দ্র বই থেকে ভোটার নাম্বার সংগ্রহ করতে হবে। তারপর services.nidw.gov.bd এই লিঙ্কে প্রবেশ করে NID স্লিপ নাম্বার এবং প্রার্থীর জন্ম-তারিখ প্রদান পূর্বক রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করতে হবে। এখন লগইন করে প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে ডাউনলোড করতে হবে। এটিই হচ্ছে ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম।

আপনি যদি না জেনে থাকেন আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে কি কি কাগজপত্র লাগে তবে জেনে নিন এখনই।

ধাপ – ১ঃ নির্বাচন কমিশন ওয়েবসাইট প্রবেশ

ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম অনুসারে প্রথমে services.nidw.gov.bd এই ওয়েবসাইট এ প্রবেশ করতে হবে। তারপর “রেজিস্টার করুন” বাটনে ক্লিক করতে হবে। এখানে ক্লিক করলে পরবর্তী তথ্যগুলো সাবমিট করতে হবে।

ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম
নির্বাচন কমিশন ওয়েবসাইট প্রবেশ

ধাপ-২ঃ রেজিস্ট্রেশন

প্রার্থীর আগে থেকে রেজিস্ট্রেশন থাকলে সরাসরি তথ্য দিয়ে লগইন করে নিতে হবে। আর যদি তা না থাকে তাহলে নতুন করে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। এছারাও আপনি যদি নতুন ভোটার হওয়ার জন্য আবেদন করতে চান তবে “নতুন নিবন্ধনের জন্য আবেদন” বাটনে ক্লিক করুন

রেজিস্ট্রেশন বাটনে ক্লিক করার পর নিচে ছবির মত একটি পেজ আসবে এখানে ১২ সংখ্যার ভোটার নাম্বার ও জন্ম তারিখ দিয়ে হবে। পরবর্তীতে কাপচা কোড টি প্রবেশ করিয়ে সাবমিট বাটনে ক্লিক করতে হবে। আপনার এই ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড ডাউনলোড করার নিয়ম

আইডি কার্ড বের করার নিয়ম
রেজিস্ট্রেশন

ধাপ-৩ঃ ঠিকানার তথ্য প্রদান

এখানে প্রার্থীর বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা প্রদান করতে হবে। যেমন বিভাগ, জেলা এবং উপজেলা ইত্যাদি তথ্য। বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা সঠিক দিতে হবে কেননা এটি যাচাই করা হবে।

মোবাইল নম্বর দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম
ঠিকানার তথ্য প্রদান

ধাপ- ৪ঃ মোবাইল নম্বর প্রদান

এই ধাপে আপনাকে একটি সচল মোবাইল নাম্বার প্রদান করতে হবে। মোবাইল নাম্বার প্রদান করে পরবর্তী বাটনে ক্লিক করতে হবে। সেই নম্বরে তৎক্ষণাৎ একটি ম্যাসেজ আসবে। ম্যাসেজ এর মাধ্যমে আসা কোডটি দিয়ে সাবমিট করতে হবে।

ফরম নম্বর বা স্লিপ নম্বর দিয়ে
মোবাইল নাম্বার প্রদান

মোবাইল নাম্বার যাচাইকরণের পর আপনার মোবাইল এ জাতীয় পরিচয়পত্র নাম্বার সম্বলিত একটি ম্যাসেজ আসবে। এখানে ভোটার নাম্বার ভোটার এলাকা, সিরিয়াল নাম্বার, পিন এবং আইডি কার্ড এর নাম্বার বের করা যাবে।

ভোটার স্লিপ নম্বর দিয়ে আইডি কার্ড ডাউনলোড

ধাপ-৫ঃ আইডি কার্ড বের করার নিয়ম

সেই NID নাম্বার কপি করে রাখতে হবে। পরবর্তীতে আইডি নাম্বার ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করতে হবে। এখন গুগল প্লে স্টোর থেকে NID Wallet নামক একটি অ্যাপ ডাউনলোড করতে হবে। এখানে নির্ধারিত বাক্তির ফেস ভেরিফিকেশন করতে হবে।

ফেস ভেরিফিকেশন এ মুখমণ্ডল সনাক্তকরণ হয়ে গেলে নির্ধারিত ডাউনলোড অপশনে ক্লিক করে অথবা মোবাইল থেকে স্কিনশট নিয়ে আইডি কার্ড ডাউনলোড করা যাবে।

তবে বলে রাখা ভালো যে বর্তমানে এই সেবাটি বন্ধ রয়েছে। তাই যারা ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম জানতে চান তারা এই উপায়ে বের করতে পারবেন না। তবে হতাশ হবার কারন নেই কেননা অন্য দুটি উপায়ে সহজেই আপনার আইডি কার্ড টি বের করতে পারবেন যেমনঃ

  • ফরম নম্বর দিয়ে
  • NID নম্বর দিয়ে

আরও গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রশ্নোত্তর

ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম ২০২৩

ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করতে হলে প্রথমে ইউনিয়ন পরিষদ কিংবা কেন্দ্র বই থেকে ভোটার নাম্বার সংগ্রহ করতে হবে। তারপর services.nidw.gov.bd এই লিঙ্কে প্রবেশ করে NID স্লিপ নাম্বার এবং প্রার্থীর জন্ম-তারিখ প্রদান পূর্বক রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করতে হবে। এখন লগইন করে প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে ডাউনলোড করতে হবে।

ভোটার আইডি কার্ড কিভাবে বের করবো?

উত্তরঃ উপজেলা কিংবা জেলা নির্বাচন অফিসে যোগাযোগ করে সরাসরি সংগ্রহ করা যাবে অথবা www.nidw.gov.bd ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করা যাবে।NID স্লিপ নাম্বার এবং প্রার্থীর জন্ম-তারিখ প্রদান পূর্বক রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করতে হবে। এরপর লগইন করে প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে ভোটার আইডি কার্ড বের করা যাবে।

আইডি কার্ড বের করতে কত টাকা

আইডি কার্ড সংশোধন করতে সর্বমোট ২৩০ টাকা লাগে। যেখানে ২০০ টাকা সরকারি ফি এবং ১৫% ভ্যাট ৩০ টাকা। এছারাও জাতীয় পরিচয় পত্রের অন্যান্য তথ্য সংশোধন ফি ভ্যাটসহ ১১৫ টাকা।

টোকেন দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম ২০২৩

টোকেন দিয়ে আইডি কার্ড বের করার জন্য প্রথমে https://services.nidw.gov.bd/nid-pub/ লিংকে প্রবেশ করতে হবে। এরপর “রেজিস্টার করুন ” বাটনে ক্লিক করে টোকেন নাম্বার ও জন্ম তারিখ দিতে হবে। বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা যাচাই করে পরবর্তী ধাপে মোবাইল নম্বর ও ফেইস ভেরিফিকেশন করে আইডি কার্ড বের করে ডাউনলোড করা যাবে।

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *